4. কেন পড়বো English Language Teaching?

4. কেন পড়বো English Language Teaching?

Subject Review : English Language Teaching

ইংরেজি  ভাষায় কথা বলতে আমরা কে না চাই। আমাদের যে কোন ভাষা- ভাষীর কাছের প্রত্যেক ব্যক্তির কাছে অনেক বেশি একটা গুরুগম্ভীর বিষয়। আমাদের মধ্যে সবার এই ভাষা রপ্ত আগ্রহ অনেক বেশি থাকে। কারণ আমাদের মনে হয় ইংরেজি ভাষার এক অন্যরকম মাধুর্য আছে। কিন্তু আমরা কি কখনো ইংরেজি ভাষা ইতিহাস জানার চেষ্টা করেছি। হয়তো অনেকেই জানি আবার জানিনা। আমর মনে হচ্ছে আমাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকের বেশি মানুষ এর সম্পর্কে জানি না। আজকে সেই বিষয় নিয়েই জানব এবং জানাব।

ইংরেজি ভাষার ইতিহাস:
ইন্দো- ইউরোপীয় ভাষা পরিবারের জার্মানীয় শাখার পশ্চিম দলের একটি ভাষা। উৎস বিচারে ইংরেজি ভাষার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ভাষা হল ফ্রিজীয় ভাষা। এছাড়া এটির সাথে ওলন্দাজ ভাষার ফ্লোমিস ভাষা ( বেলজিয়ামের প্রচলিত ওলন্দাজ ভাষার উপভাষা ও ভাষা) ও নিন্ম জার্মানি উপভাষা গুলোর সম্পর্ক আছে। উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের গ্রেট ব্রিটেন দ্বীপের দক্ষিণাংশে অবস্থিত ইংল্যান্ড নামক দেশটিতে খ্রিস্টীয় আনুমানিক ৬ষ্ঠ শতকে ইংরেজি ভাষার জন্ম হয়।বর্তমানে এর ক্যারিবীয় সাগরে ও প্রশান্ত মহাসাগরের অনেক দ্বীপের প্রধান মাতৃভাষা।

ইংরেজি ভাষা শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা
বর্তমান সময়ে ইংরেজি শিক্ষা আমার সবার জন্য প্র‍য়োজনীয় বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। এখন প্রায় সব ক্ষেত্রে চাহিদা এবং গ্রহণযোগ্যতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। যেকোনো সরকারি- বেসকারি অফিস আদালত, ব্যাংক, বীমা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এর প্রসার বেড়েই চলেছে। আর এখন শুধু বাংলাদেশ নয় প্রায় বিশ্বের সব দেশেই উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ইংরেজি ভাষার ব্যবহার হয়ে চলছে। এছাড়ও আপনার আমার দৈনন্দিন ব্যবহারিক জীবনে ইংরেজি গ্রহণযোগ্যতা হারে হারে টের পাচ্ছি।

এবার আসা যাক কিভাবে সহজেই ইংরেজি ভাষা শিক্ষা যায়:
এখন ইংরেজি ভাষা শিক্ষা আপনার দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি আপনার স্বপ্ন পূরনে সহযোগিতা করবে। পূর্বে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা অনেক কঠিন বিষয় ছিল। কিন্তু এখন তথ্য প্রযুক্তি মাধ্যেমে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা সহজ থেকে সহজর হয়েছে। আপনি অতি দ্রুত ইংরেজি শিখার জন্য যেসব মাধ্যম ব্যবহার করতে পারেনঃ ব্রিটিশ কাউন্সিল মাধ্যেমে অনলাইনে ঘরে বসে আপনি ইংরেজি শিখতে পারেন। বাংলাদেশ ব্রিটিশ কাউন্সিল সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এছাড়াও সাইফোর্স এর প্রাথমিক স্তর থেকে সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত শেখানো হয়। রবি টেন মিনিট স্কুলে স্পোকেন ইংলিশ কোর্স মাধ্যমে ইংরেজি ভাষা সহজে কিভাবে রপ্ত করা যায় তাই শিখানো হয়। তাছাড়াও বিভিন্ন অনলাইন ভিত্তিক কোর্স যেমনঃ ই- শিখন ডট কম, ঘুড়ি লার্নিং, বিবিসি ইংরেজি শিক্ষা, আমাদের পাঠশালা ইত্যাদি মাধ্যমে ইংরেজি ভাষা শিখা যাবে। আর যারা ইংরেজি বিভাগে পড়াশুনা করে তাদের অনার্স তৃতীয় বর্ষ থেকে ইংরেজি ভাষা শিক্ষার নামক একটি বিষয় পড়ানো হয়।

ইংরেজি ভাষা শিক্ষার নিয়ম:
ইংরেজি এমন একটি ভাষা যা শিক্ষার কিছু নিয়ম রয়েছে। যেমনঃ চিন্তাটা ইংরেজিতে করা। আমরা যখন ইংরেজিতে কথা বলি তখন বাংলা থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করে থাকি এর ফলে বারবার বাংলা ইংরেজি যাওয়া আসা চলতে থাকে। যে কারণে, কথায় ফ্লুয়েন্সি থাকে না। তাই আমাদের চিন্তাটা ইংরেজিতেই করতে হবে। শুধু মাত্র কথা বলার সময় না। যে কোন সময়। যখন আমারা মনে মনে কিছু চিন্তা করব তখন যেন সেটা ইংরেজিতেই করি। একা একা কথা বলা। আমরা যখন ইংরেজিতে কথা বলা চিন্তা করা শিখে যাব ঠিক তখনই আমরা একা একা কথা বলে তা শুনে বুঝতে পারব যে ফ্লুয়েন্সি কতটা বেড়েছে। গ্রামার নিয়ে বেশি চিন্তা না করা। আমরা যখন ইংরেজিতে কথা বলি তখন গ্রামার নিয়ে চিন্তা করি। লেখার সময় হয়তো নির্ভুল গ্রামার লিখি কিন্তু কথা বলতে গেলে ভুল হয়ে যায়। তাই ইংরেজি কথা বলার সময় গ্রামার নিয়ে এত চিন্তা করা যাবে না।
প্রচুর ইংরেজি শোনা। আমরা ইংরেজি বই পড়ে যতটা না শিখতে পারব, তার চেয়ে মুভি সিরিজ দেখে। আমি যখন এগুলো দেখে ইংরেজি শিখা শুরু করলাম তখন থেকে বুঝলাম ইংরেজি কিছু আলাদা শব্দ থাকে। সেগুলো যত না শব্দ বা বাক্য থেকে এক্সপ্রেশনে বুঝা যাবে তাই যত বেশি সম্ভব মুভি বা সিরিজ দেখা। ইংরেজি গান গাওয়া আপনি যখন গান গাইবেন তত বেশি প্র্যাকটিস হবে। এতে আপনার উচ্চারণ গুলো শুদ্ধ ও সহজ হয়ে যাবে। ইংরেজিতে গল্প বলা। তোমার পছন্দের ইংরেজি গল্পটি কাউকে বল। এতে করে তোমার নিজর পরিক্ষা নেওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হল এটি। তুমি যখন দেখবে তুমি অনর্গল ইংরেজি বলে যাচ্ছো, আমরা কতোটা ভালো বুঝতে পারছি। সেটা অনুযায়ী তোমার ধারণা হয়ে যাবে। যেকোন শব্দের রূপ সম্পর্কে জানা। বেশ কিছু শব্দ একই রকম হতে পারে কিন্তু অর্থ গুলো আলাদা। এক একটা শব্দ একেক রকম অর্থপূর্ণ হয়ে থাকে। তাই অর্থ বুঝে শব্দের প্রয়োগ করতে হবে। শুধু শব্দ না phrase শেখা। আয়নার সামনে দাড়িঁয়ে কথা বলা। এবং সংকোচ কাটিয়ে তোলা।

ইংরেজি ভাষা শিখে আপনি যেসব কাজ করতে পারবেন:
আপনি যে ক্ষেত্রেই কাজ করেন ইংরেজি লাগবে। আপনি ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হলে একজন পাবলিক স্পিকার হিসাবে কাজ করতে পারেন। বুক ট্রান্সলেটর হয়ে কাজ করা যায়। আপনি দোভাষী হতে পারেন। আমাদের অনের প্রশ্ন হতে পারে দোভাষী কি? একজন ভিন্ন ভাষা মানুষের সাথে কথব- কথনে সাহায্য করা। একটি ভাষার মাধ্যমে। ইংরেজি নিউজ প্রেজেন্টার। গ্রামার কোর্স আরো নানা পেশায় কাজ করতে পারেন।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা:
এখন অনেক প্রন্তিক পর্যায়ে ইংরেজি ভাষা শিক্ষার তেমন অগ্রগতি নেই বলেই চলে। ১৫ বছর আগে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা বিষয়ে গ্রামার টিচিং নিয়ে কাজ শুরু করে তার কোন সুফল আমরা এখন পাইনি।
আমাদের বিদ্যালয় গুলোতে ইংরেজি ভাষা শিক্ষার হার খুব স্বল্প। যা আমাদেত উচ্চ শিক্ষা গ্রহনে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

আমরা কেন ইংরেজি ভাষা শিখব:
বিশ্বের প্রায় ৩৮ কোটি মানুষের মাতৃভাষা ইংরেজি সখ্যার বিচারে তৃতীয়। প্রায় ৫২ দেশের সরকারি ভাষা এটি। ৩৫ শতাংশ ইন্টারনেট জন্য ইংরেজি ভাষার ব্যবহার করে। অধীত দ্বিতীয় ভাষা। আমাদের প্রত্যক ক্ষেত্রেই ইংরেজি ভাষার প্রচলব বহু সময় আগে থেকেই। তার এর প্রয়োজনীয়তা আর ব্যাখা করার দরকার নেই। আমর দেশের বাইরে ভ্রমন করতে গেলে আপনার ইংরেজি জানা লাগবে। এছাড়াও আপনি যখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে নিজের দেশে উস্থাপনা করতে যাবেন তখন ইংরেজি ভাষার প্রয়োজন পড়বে। আপনি যখন কোন মাল্টিন্যাশনাল কম্পানির সাথে কাজ করতে যাবেন তখন ইংরেজির ভাষা ছাড়া কাজ করতে পারবেন না। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ক্লাস গুলো ইংরেজিতে নেওয়া হয়। ব্যাংকের হিসাবে নিকাশ এখন সব ইংরেজিতে হয়ে থাকে। তাই এখন ইংরেজি ভাষাটা রপ্ত করা বেশ দরকার। এখন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজি ভাষা ভিত্তিক প্রোগ্রাম হয়ে থাকে। ইংরেজি হোক বা বাংলা যেই ভাষায় কথা বলে না কেন তা সুন্দর হওয়া চাই। যাতে করে শ্রোতারা শুনতে ভালো লাগে।

Leave a Comment

error: Content is protected !!