বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টি২০ সিরিজ

কথায় আছে “জোর যার মুল্লুক তার”। আর এই কথারই যেন ষোল কলা পূর্ণ করলেন অজিরা। বাংলাদেশে সফরকারীরা আসবে কি আসবে না তা নিয়ে জল্পনা কল্পনা থাকলেও ২৫ জুলাই ২০২১ বিসিবি সুসংসবাদ পায় স্টার্কদের থেকে। সুসংবাদের পাশাপাশি দুসংবাদও দেয় অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড।এবার অজিদের দাবি ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন না মানায় টিম টাইগার্স দলে রাখতে পারবে না মিস্টার ডিপেন্ডেবলকে। বাংলাদেশের এর আগে জিম্বাবুয়ে সিরিজ ছিল যেখানে ৩ ওয়ানডে এবং ২ টি ২০ ম্যাচ না খেলেই টিমমেটদের বিদায় জানাতে হয় মা বাবার অসুস্থতার জন্যে।যার জন্য মুশি কোয়ারেন্টাইন মানতে পারে নি।

অপর দিকে সফরকারীরা ২৯ তারিখ ঢাকায় এসে কোয়ারেন্টাইনে থাকবে মাত্র ৩ দিন। যদিও সরকারি আইন অনুযায়ী বাহির থেকে আসলেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক। কিন্তু ক্যাঙ্গারু বাহিনী ১১ দিন মাফ পেয়ে যাচ্ছেন এখানে।

২৭ জুলাই লিটন দাস জানায়, তিনি পারিবারিক কারণে এই সিরিজে দর্শক হয়েই থাকবেন। সেই সাথে মুস্তাফিজের ইন্জুরি টিম ম্যানেজমেন্ট এবং হাবিবুল বাসারকে অগ্নি পরীক্ষায় ফেলতে পারে পেইস বোলার সিলেকশনে। কারণ, অস্ট্রেলীয়রা নিয়ে আসছে শক্ত ১টি বোলিং লাইন আপ। যদিও অজিরা আনতে পারছে না ফিন্চ, ম্যাক্সওয়েল ওয়ার্নার এর মতো তারকা ক্রিকেটারদের। তাই ব্যাটিং এর দিকে টিম টাইগার্স যে সুবিধা পাবে তা বলাই যায়। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড ইতিমধ্যে ১৭ সদস্যের টিম ঘোষণা করেছে এই ০৫ ম্যাচ সিরিজকে কেন্দ্র করে। অজিদের টিমে যারা থাকছেন-
১. এ্যাসটোন আগার
২. ওয়েস আগার
৩. জেসন বেহর‍্যানডর্ফ
৪. এ্যালেক্স ক্যারি (wk)
৫. ড্যান ক্রিশ্চিয়ান
৬. জোস হ্যাজরলিউড
৭. মোইসেস হ্যানরিক্স
৮. মিচেল মারস
৯. রিলে মেরেডিথ
১০. বেন ম্যাকডেমল্ট
১১. জোস ফিলিপ
১২. মিচেল স্টার্ক
১৩. মিচেল সুয়েপসন
১৪. এ্যাসটোন টার্নার
১৫. এ্যানড্রিউ টাই
১৬. ম্যাথিউ ওয়েড (wk)
১৭. এডাম জাম্পা
অপরদিকে বাংলাদেশ দলে রয়েছে –
১.সৌম্য সরকার
২. নাসুম আহমেদ
৩. মাহমুদুল্লাহ (c)
৪. সাকিব আল হাসান
৫. নুরুল হাসান (wk)
৬. মাহেদী হাসান
৭. আফিফ হোসাইন
৮. মোসাদ্দেক হোসাইন
৯. তাসকিন আহমেদ
১০. রুবেল হোসাইন
১১. মোস্তাফিজুর রহমান
১২. শামীম হোসাইন
১৩. শরিফুল ইসলাম
১৪. তাইজুল ইসলাম
১৫. মোহাম্মদ মিঠুন
১৬. মোহাম্মদ নাইম
১৭. মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন

পাচ টি-টুয়েন্টির সময়সূচি:


১ম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ৩রা আগস্ট
২য় ম্যাচ ৪ঠা আগস্ট
৩য় টি-টুয়েন্টি হবে ৬ আগস্ট
৪র্থ টি-টুয়েন্টি ৭ই আগস্ট এবং
সিরিজের সর্বশেষ টি-টুয়েন্টি অনুষ্ঠিত হবে ৯ই আগস্ট
সকল টি-টুয়েন্টি ম্যাচের ভেন্যু মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়াম এবং প্রতিটি ম্যাচ বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায় নির্ধারিত দিনে শুরু হবে।

বাংলাদেশ -অস্ট্রেলিয়া পরিসংখ্যান:


বাংলার বাঘরা ১৬ বছর ধরে টি-টুয়েন্টি খেলে আসলেও বড় দলের বিপক্ষে খেলা অথবা জয় কোনোটির মুখই সেভাবে দেখা হয় নি।
সবচেয়ে বেশি টি-টুয়েন্টি ম্যাচ সর্বাপেক্ষা দুর্বল দল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলেছে টিম টাইগারস। তারপরও সব গুলোতে জয় আসে নি ঐ মুশফিক সাকিবদের দল থেকে।
টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে যেন সদ্যজাত শিশু এখনো টিম টাইগারস প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলীয়দের কাছে। কারণ এই ২ দল এর আগে কোনো দ্বি-পাক্ষিক টি-টুয়েন্টি সিরিচে হাত মেলাই নি। ক্রিকেটের বড় ভাইদের সাথে যা দেখা হয়েছিল তা ঐ টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চে।
৪ বার স্টার্ক বাহিনীর সাথে খেলার সুযোগ পেলেও সুখবর একবারের জন্যও আনতে পারে নি ঐ মোস্তাফিজ রুবেলেরা।
এই স্ট্যাটিস্টিক তো অংকের। অংক কি আর মাঠে কথা বলে? স্ট্যাটিস্টিকে পিছিয়ে থাকলেই কি বাংলার বাঘ হুংকার দিতে জানে না? বাংলার ক্রিকেটের টাইগররা এই পরিসংখ্যান ভেঙে নতুন পরিসংখ্যান গড়বে এই সিরিজের মাধ্যমে। এই প্রত্যাশায় বুক বেধে আছে বাংলার ১৬ কোটি প্রাণ।
বাংলাদেশ এই সিরিজের মাধ্যমে নিজের জাত চিনাবে। এই প্রত্যাশা এবং শুভকামনা রইল আমাদের ক্যাম্পাসিযান পরিবার গ্রুপ হতে

Leave a Comment

error: Content is protected !!