শিক্ষার্থীদের জন্য বিদেশি কিছু জনপ্রিয় স্কলারশিপ

স্কলারশিপ নিয়ে বিদেশে উচ্চ শিক্ষা লাভ করা অনেকেরই স্বপ্ন থাকে।তবে পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে আবেদন করলে স্কলারশিপ পাওয়া সহজ হয়। উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে গন্তব্য অনেকেরই আশা। উচ্চমাধ্যমিক কিংবা স্নাতক শেষ করে অনেকের এই ইচ্ছা থাকে যে বিদেশে স্কলারশিপ পাবে।

জাপানের MEXT বৃত্তি জন্য যা যা করতে হবেঃ

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পড়াশোনার জন্য জাপান সবসময়ই শিক্ষার্থীদের কাছে অন্যতম পছন্দের একটি নাম। জাপানের সবচেয়ে জনপ্রিয় বৃত্তি হচ্ছে ‘মনবুকাগাকুশো’ স্কলারশিপ, যাকে মেক্সট বৃত্তিও বলা হয়।

এর বিশেষত্ব হচ্ছে এই বৃত্তিতে রয়েছে বিশাল অঙ্কের ভাতা, কিন্তু বৃত্তির আওতায় স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি মিলিয়ে প্রতিবছর সর্বোচ্চ দুইশোজন বাংলাদেশি সুযোগ পান।
আবেদনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে : https://www.bd.emb-japan.go.jp/itpr_ja/00_000706.html

রাশিয়ান সরকারি গুরুত্বপূর্ণ বৃত্তির জন্য যা যা করতে হবেঃ

রাজনীতিতে ক্রমেই মোড়লের আসন পুনরুদ্ধারে এগিয়ে চলেছে রাশিয়া। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে অত্যন্ত অগ্রসর এ দেশটির প্রচারবিমুখতার কারণে তাদের সম্পর্কে বাইরের দেশের মানুষের তেমন পরিষ্কার ধারণা নেই। কিন্তু রাশিয়ার সরকারি বৃত্তি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে উন্নত বিশ্বে।

এ বৃত্তিতে ফুলফান্ড পেতে চাইলে একটি শর্ত রয়েছ আর সেটা হলো তোমাকে পড়াশোনা করতে হবে রাশিয়ান ভাষাতে। তবে তাতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, সরকারি খরচেই মূল কোর্সের আগে ৭ মাস রাশিয়ান ভাষা এবং ২ মাস রাশিয়ান সংস্কৃতির ওপর কোর্স করে নেওয়ার সুযোগ দিবে।

বৃত্তির আবেদন গৃহীত হলে পড়তে যেতে শুধু তার বিমান ভাড়া এবং খাবারের খরচটা নিজের পকেট থেকে দিতে হবেন। বাকীসব যেমন ভিসার খরচ, টিউশন, বাসস্থান সহ সব কিছুর খরচ সরকার বহন করবে। রাশিয়া গিয়ে প্রথমে ১০০-১৫০ ডলার দিয়ে স্বাস্থ্য বীমা করিয়ে নিতে হবে। মাসিক খরচ সর্বোচ্চ ১৫০ থেকে ২৫০ ডলারের মধ্যেই হয়ে যাবে যাবে।

আবেদনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে : http://bit.ly/3iHJ80H

ভারত সরকারের আইসিসিআর স্কলারশিপের জন্য যা যা করতে হবেঃ

Indian Culture for Cultural Relations (ICCR) প্রতিবছর ভারতীয় দূতাবাসের মাধ্যমে ভারতে পড়তে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের ফুল স্কলারশিপ দিয়ে থাকে। তারা মূলত ব্যাচেলর, মাস্টার্স ও পিএইচডির জন্য স্কলারশিপ প্রদান করে থাকে। প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে ২০০ জনকে স্কলারশিপ দিচ্ছে আইসিসিআর। বিদেশে পড়তে যাওয়া মানে যে আপনাকে অনেক টাকা খরচ করতে হবে, তা কিন্তু না। যদি আপনি একটু চিন্তা করেন, বুদ্ধি খাটান, একটু পরিশ্রম ও অনেক ইচ্ছা এবং আপনার যদি অনেক আগ্রহ থাকে, তাহলেই সম্পূর্ণ বিনা খরচে পড়াশোনা করা আপনার পক্ষে সম্ভব।

যা যা সুযোগ–সুবিধাসমূহদেওয়া হবেঃ
১। সম্পূর্ণ টিউশন ফ্রি দেওয়া হবে।
২। প্রতি মাসে উপবৃত্তি হিসাবে আঠারো হাজার ভারতীয় রুপি দেওয়া হবে।
৩। যাওয়া-আসার ফ্লাইট ভাড়া দেওয়া হবে।

যেভাবে আবেদন করতে হবেঃ
আইসিসিআর প্রতিবছর জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে ফরম ছাড়ে। যোগ্যতার ক্ষেত্রে এসএসসি ও এইচএসসিতে ৬০ শতাংশ মার্কস থাকলে আবেদন করতে পারবেন। আইইএলটিএস প্রয়োজন পড়ে না। থাকলে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তবে এ স্কলারশিপ পাওয়ার জন্য পূর্বের রেজাল্টের থেকে পরীক্ষা ও ভাইভাতে ভালো করা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

আমাদের সময় আবেদনের পর লিখিত পরীক্ষা (ইংরেজি গ্রামারের ওপর) হতো। পরীক্ষায় ফলের পর ভাইভা হয়। এরপর ভাইভাতে টেকার পরই ইন্ডিয়ান হাইকমিশন অফার লেটার পাঠায়। অফার লেটার পাওয়ার পরপরই ভিসার জন্য আবেদন করতে হয়। ভিসা পাওয়ার অল্প কয়েক দিনের মধ্যে ইন্ডিয়ায় চলে আসি। এসব কাজ সম্পূর্ণ করতে ইন্ডিয়ান হাইকমিশন সব ধরনের সাহায্য করে। হাইকমিশনের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা অনেক আন্তরিক, যেকোনো সমস্যা হলে সমাধান করে দেন।

এ বছর করোনার কারণে অনেক পরিবর্তন আসছে। এখন আর সরাসরি পরীক্ষা হচ্ছে না। আইসিসিআর পোর্টালে গিয়ে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হচ্ছে। তার সঙ্গে ৬ টা নির্ধারিত বিষয় থেকে একটা বিষয় নির্বাচন করে ৫০০ শব্দের মধ্যে একটা প্রবন্ধ লিখতে (কোথা থেকে কপি করা যাবে না) হবে। তবে আইসিসিআরে আবেদনের ক্ষেত্রে একটা বিষয় খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তা হচ্ছে পাসপোর্ট, যেটা থাকা বাধ্যতামূলক। এই স্কলারশিপে সাধারণত ২০০ সিট থাকে, যার মাধ্যে ১০০ সিট ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য বরাদ্দ এবং বাকি ১০০ সিট থাকে অন্যান্যদের জন্য। আইসিসিআর কোনো মেডিকেল সায়েন্সে স্কলারশিপ প্রদান করে না।

আবেদনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে : http://a2ascholarships.iccr.gov.in/
ইউনিভার্সিটি নির্বাচন করার ক্ষেত্রে একটু সতর্ক থাকতে হবে। এ জন্য সবচেয়ে ভালো হয় নির্ধারিত ইউনিভার্সিটি লিস্টে আপনার পছন্দের ইউনিভার্সিটি ভালো করে গুগল করে নিতে পারবেন। সেটা হলে খুব সহজেই আপনাদের ভালো ধারণা চলে আসবে ইউনিভার্সিটি সম্পর্কে। এই স্কলারশিপে আবেদনের জন্য ইয়ার গ্যাপের কোনো বিধিনিষেধ নেই। এ ক্ষেত্রে আবেদনকারীর বয়স মিনিমাম ১৮ বছর হতে হবে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক-স্নাতকোত্তরদের বৃত্তির আবেদনের জন্য যা যা করতে হবেঃ

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি বিশ্ববিদ্যালয় বিদেশি শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেবে। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পড়ুয়াদের জন্য এ বৃত্তি দেবে বিশ্ববিদ্যালয়টি। বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশের শিক্ষার্থীরা এ বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে বলেছে, ২০২১ সালের জন্য একাডেমিক বৃত্তি, প্রাক্তন শিক্ষার্থী বৃত্তি, চেয়ারম্যানের বৃত্তি, পারিবারিক টিউশন মওকুফ, এইচ এইচ শেখ হামদান বিন জায়েদ বৃত্তি ও বিশ্ববিদ্যালয় বৃত্তি প্রদান করা হবে।

আবেদনের যোগ্যতা:

আবুধাবি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক ও স্নাতকোত্তর বৃত্তির জন্য আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। আরব আমিরাতের শিক্ষার্থীরাও এসব বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। আবেদনকারীদের অবশ্যই একটি পূর্ণকালীন প্রোগ্রামের জন্য আবেদন করতে হবে।

আবেদনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে : https://www.adu.ac.ae/en/study/financials/scholarships

Leave a Comment

error: Content is protected !!