2. CIVIL Engineering কেনো পড়বো?

2. CIVIL Engineering কেনো পড়বো?

Subject Review : CIVIL Engineering 

পৃথিবীর প্রাচীনতম ইঞ্জিনিয়ারিং বলতে গেলে যে বিষয়টি মানুষের মাথায় খেলা করে তা হলো সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরকৌশল।।একজন সাধারণ মানুষ ইঞ্জিনিয়ার বলতে একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারকেই কল্পনা করে থাকেন। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং সভ্যতার শুরু থেকেই বিস্তার লাভ করে আসছে। বাংলাদেশের এমন কোন জায়গা নেই যেখানে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের ছোঁয়া লাগেনি। সবচেয়ে পুরাতন, বড় এবং সকল প্রকৌশল জ্ঞানের সমন্বয় এই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং।

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের কাজঃ
সুউচ্চ ভবন, হাইওয়ে,ব্রীজ,পানি প্রকল্প, পাওয়ার প্লান্ট ইত্যাদি পরিকল্পনা, ডিজাইন, গঠন এবং রক্ষনাবেক্ষন করার কাজ করের সিভিল ইঞ্জিনিয়ার। সিভিল ইঞ্জিনিয়ার জরিপের কাজ করে থাকে, প্রযুক্তিগত প্রতিবেদন দেয়, এমনকি প্রকল্প ব্যবস্হাপক এর কাজও করে থাকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের পরিসরঃ যেহেতু সময়ের সাথে সাথে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এর পরিসর বাড়ছে তাই এর অনেক শাখা বের হয়েছে।

এদের মাঝে উল্লেখযোগ্য হল-
১) মৃত্তিকা প্রকৌশল
২) স্ট্রাকচারাল প্রকৌশল
৩) পরিবহন প্রকৌশল
৪) পানি সম্পদ প্রকৌশল
৫) পরিবেশ প্রকৌশল কাজের ক্ষেত্র –
অনেকে ভাবে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়ে ভালো স্যালারি পাওয়া যাবেনা,অবশ্যই পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি চাকুরির ক্ষেত্র যে সিভিলেই,সেটা এখন আর কারো অজানা নয়। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করার পর আপনার যদি বাস্তব অভিজ্ঞতাটুকু থাকে,তবে প্রকৌশলী হিসেবে আপনার উন্নতি কেউ রুখতে পারবে না।

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর কাজের ক্ষেত্রগুলো হল-
১) সড়ক ও জনপদ
২) গণপূর্ত বিভাগ
৩) রিয়েল এস্টেট কোম্পানি
৪) নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ
৫) পরিবেশ নিয়ে কর্মরত বিভিন্য মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানি
৬) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর, ইত্যাদি।

শুধুমাত্র দেশে নয়, দেশের বাহিরেও রয়েছে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের অধিক চাহিদা। আমেরিকার ৬নম্বর সেরা চাকুরি হল সিভিল। আমেরিকাতে একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের মাসিক বেতন নুন্যতম ৮০,০০০ ডলার থেকে ১২০,০০০ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে। সময়ের সাথে সাথে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এর গুরুত্ত্ব বাড়ছে। বর্তমানে তারা আগুন নিয়ন্ত্রণ নিয়েও কাজ করে। তারা আগুনে ক্ষয় ক্ষতি যেন কম হয় সেই বিষয়েও কাজ করে। পুরাতন মিশর এর পিরামিড বা রাস্তা নির্মাণে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এর ভূমিকা উল্ল্যেখযোগ্য অবদান ছিল। পানি বাতাস এবং মাটি পরিশোধনের বিভিন্য উপায় নিয়েও তারা সজাগ। পরিশেষে বলতে চাই, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রে সিভিল পরবেন কিনা তা নিয়ে দ্বিধায় আছেন তাদেরকে বলবো চোখ বন্ধ করে আমাদের জগতে চলে আসুন, কথা দিচ্ছি বিশ্বকে সুন্দর করে গড়তে আপনি সক্ষম হবেনই।

পুরকৌশল- প্রকৌশলবিদ্যার অন্যতম শাখা। সঙ্গত কারনেই সারা পৃথিবীর প্রকৌশল বিদ্যায় আগ্রহী শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় থাকে এই শাখাটি। স্বপ্ন যাদের দেশ গড়ার তাদের জন্যই পুরকৌশল।
চাহিদার কথা বলতে গেলে বলতে হয় কিছু কিছু বিষয়ের চাহিদা সেই প্রাচীন কালেও ছিল, এখনও আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে। পুরকৌশল তেমনি একটি বিষয়। অনেকের ধারনা এই বিষয় পড়লে ঘুষ খেতে হয় কিংবা এই প্রকৌশলীদের বেতন নাই। কিন্তু ভাল মন্দ সম্পূর্ণ নিজের কাছে। কেউ যদি দুর্নীতি করতে চায়, যে কোন জায়গা থেকেই তা করতে পারে। ভাল থাকতে চাইলে যে কোন জায়গাতেই ভাল থাকা সম্ভব। আর বেতনের কথা বলা যায় skill থাকলে এই বিষয়ে যত উপরে যাওয়া যায়, অন্য কোন বিষয়ে তা সম্ভব না, তা দেশেই হক আর বিদেশেই হোক।

পৃথিবীর মানবসভ্যতার শুরু থেকে যেই ইঞ্জিনিয়ারিংটা আছে সেটা হল সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরকৌশল।বিভিন্ন স্ট্রাকচার যেমন বিল্ডিং,সাবওয়ে, এয়ারপোর্ট,ব্রিজ,রাস্তা এসব সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর অন্তর্ভুক্ত।কিন্তু সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং শুধু স্ট্রাকচার এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়।

সিভিল এর সীমা ব্যাপক। প্রধানত:-
১.স্ট্রাকচার
২.জিওটেকনিকাল
৩.ট্রান্সপোর্টেশন
৪.ওয়াটার রিসোর্চ
৫.এনভাইরোনমেন্ট
এসব সেক্টর উপর বেজ করে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং।সুতরাং সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং মানেই যে শুধু স্ট্রাকচার এমনটা সম্পূর্ন ভুল। সেই আদি থেকে শুরু হওয়া সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর চাহিদা সমসময়ই বেশি।যেহেতু সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর বিস্তৃতিটা ব্যাপক।তাই সরকারী বেসরকারী প্রচুর চাকরী আছে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য।এছাড়া ভবিষ্যতে রয়েছে ব্যাপক রিসার্চের সুবিধা।

এবার আসি প্রথম জবের ব্যাপারটাতে। এটা ঠিক ফ্রেশারদের জন্য প্রাইভেট জব পাওয়া সিভিলে কঠিন। মেকানিক্যাল আর ইলেক্ট্রিক্যালে তুলনামূলক সহজ। কিন্তু ফ্রেশারদের জন্য সিভিলে অনেক সরকারি চাকরির সুযোগ আছে (সরকারি চাকরি যে কেবল বিসিএস থেকেই পাওয়া যায় এই ভুল ধারণা যেন আবার কারো না থাকে। রাজউক, সিটি কর্পোরেশন, এলজিইডি,পিডিবি, পল্লী উন্নয়ন, পাবলিক হেলথ, ওয়াসা, বাপেক্স, পেট্রবাংলা, এলজিয়ারডি, ভূমি, রোডস এন্ড হাইওয়ে, এগুলো কিন্তু সরকারী শায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান। এগুলোর আলাদা জব সার্কুলার হয়, বিসিএসের বাইরেও আলাদা সার্কুলার থেকে প্রতি বছর প্রায় ২০০+ রিক্রুট হয় কেবল সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে, যা অন্য সব ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে বেশি)

আর ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার বা মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের জব গুলো ইন্ডাস্ট্রি বেসড। তাদের পক্ষে নিজে কিছু করা কঠিন। কিন্তু কয়েকজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ার মিলে কন্সাল্টেন্সি ফার্ম খুলে ফেলতে পারে সহজে। পুঁজি খুব কম লাগে। তারা ডিজাইন, এস্টিমেশন এমন কি ইন্টেরিওর ডিজাইন সার্ভিস দিতে পারে। এভাবে কয়েকবছর কাজ করে ট্রেড লাইসেন্স ম্যানেজ করতে পারলেই কিন্তু একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের অভিজ্ঞতা হয়ে যায়। এর জন্য ইট্যাবস, প্রফেশনাল অটোক্যাড এগুলো একটু ভালো করে শেখা লাগে। আর ৩-৫ বছরের অভিজ্ঞতা হয়ে গেলে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের জব আর স্যালারি যে মেকানিক্যাল আর ইলেক্ট্রিক্যালের চেয়ে বেশি হয় ।
সিভিলে এভারেজ রেজাল্ট ইলেক্ট্রিক্যাল বা সিএসই থেকে খারাপ আসে। কিন্তু এইটা অয়ার্ল্ড ওয়াইড চিত্র।

MIST,BUET,KUET,CUET,IUT,SUST সহ বাংলাদেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও মোটামুটি একই অবস্থা। কিন্তু সিভিলে আমাদের দেশে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সহ মাত্র ২৩৫০ স্টুডেন্ট বের হয় প্রতিবছর। এর মধ্যে অধিকাংশ বেসরকারি বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে আইইবি অ্যাক্রিডিটেশন নেই। অন্য কোন বিষয়ে আইইবি অ্যাক্রিডিটেশনের খুব একটা গুরুত্ব না থাকলেও সিভিলের ক্ষেত্রে আছে। কারণ আইইবি অ্যাক্রিডিটেশন ছাড়া কোন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের করা ডিজাইন রাজউক বা এলজিইডি থেকে পাশ করানো যায় না। করা গেলেও ঘুষ দেয়া লাগে।

তাই একটা কোম্পানির পক্ষে আইইবি অ্যাক্রিডিটেশন ছাড়া সিভিল ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগ দেয়া অলাভজনক। তাই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে আইইবি অ্যাক্রিডিটেশন খুব দরকার। প্রতি বছর ২৩৫০ সিভিল ইঞ্জিনিয়ার বের হলেও আইইবি অ্যাক্রিডিটেড সিভিল ইঞ্জিনিয়ার বের হয় মাত্র ১১০০। তাই কম্পিটিশন আরো কম। কেবল ডিপ্লোমাই একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী। আর বাংলাদেশে বর্তমানে সরকারি চাকরি হল সবচেয়ে বেশি সিকিউরড। বর্তমানে সরকারি চাকরিতে বেতনও বাড়ানো হয়েছে। আবার চাকরি যাবার ভয়ও সরকারি চাকরিতে প্রায় নেই বললেই চলে। এসব বিবেচনায় সরকারি চাকরি অনেক সেফ, আর সিভিলে সরকারি চাকরি অন্য সব ইঞ্জিনিয়ারিং এর চেয়ে বেশি।

এবার আসি স্কলারশিপের কথায়। বাংলাদেশিদের জন্য সব দেশ কিন্তু সুবিধাজনক নয়। রাশিয়া, জাপান, কোরিয়া আর চীনের কথা আগেই বলেছি। আরো অনেক দেশ স্কলারশিপ দেয়। কিন্তু সিটিজেনশিপ দেয় না। বাংলাদেশিদের জন্য দেশের বাইরের মধ্যে ভালো অপশন হল আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, মালয়েশিয়া, ইংল্যান্ড, সুইডেন, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ড, ইটালি, স্পেন আর মিডল ইস্ট। এর বাইরে অন্য কোন দেশে বাংলাদেশিদের স্কলারশিপের সুযোগ থাকলেও থাকার জন্য, জবের জন্য, বা ওভারঅল রেসিডেন্স শিপের জন্য অনুকূল না। তাই অন্য কোথাও বাংলাদেশিদের সংখ্যা খুব কম। যেমনঃ রাশিয়া। রাশিয়াতে গেলে ওয়েস্টার্ণ ওয়ার্ল্ডে যাওয়ার সুযোগ অনেক কমে যাবে। কেন তা নিশ্চয়ই ব্যাখ্যা করতে হবে না? আবার রাশিয়া রেসিডেন্সশিপের জন্যও সেফ কোন দেশ না।তোমরা খোজ নিলেই দেখবে তোমাদের আত্মীয়স্বজনের মধ্যে যারা দেশের বাইরে থাকে তারা প্রায় সবাই ই এই কয়টা দেশের কোন একটাতেই থাকে।
যাই হোক উপরের ১১ টা দেশ আর মিডল ইস্টের মধ্যে মিডল ইস্ট এ কেউ স্কলারশিপ নিয়ে পড়তে যায় না। যায় কাজ করতে। সেখানে কাজের সুযোগও কিন্তু সিভিলের বেশি। আসলে মিডল ইস্টে কাজের জন্য সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং সিএসইর চেয়েও কার্যকর। উদাহরণস্বরূপ ক্যারিয়ারজেট বা জব এটলাসের মিডল ইস্ট রিজিয়ন টা দেখ।

ইংল্যান্ডে ব্রেক্সিটের পর ভিসা পাওয়া অনেক কঠিন। ভিসা পাওয়া গেলেও পারমানেন্ট রেসিডেন্টশিপ বা সিটিজেনশিপ পাওয়া আরো কঠিন। স্পেন সিটিজেনশিপ দেয় না। স্কলারশিপও কম দেয়। ইটালিতে বাংলাদেশিরা অধিকাংশই যায় মধ্যপ্রাচ্য থেকে, শ্রমিকের কাজ করতে। ইটালিতে খুব কম বাংলাদেশীই ভালো চাকরি বা পড়াশুনা করতে যায়। শ্রমিকই বেশি। আবার চাকরির নিরাপত্তা, বেকারত্তও ইটালি তে বেশি।
সব মিলিয়ে বাংলাদেশিদের জন্য এখন সবচেয়ে ভাল গন্তব্য হল আমেরিকা( ট্রাম্প আসার পর রেসিডেন্স ভিসা একটু কঠিন করলেও স্টুডেন্ট ভিসা কঠিন করে নি), কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, সুইডেন, নেদারল্যান্ড, ডেনমার্ক এই দেশগুলি। এর মধ্যে বেশি নির্ভর যোগ্য হল আমেরিকা, কানাডা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া। আর কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা তিনটি দেশেই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের সুযোগ অনেক ভালো।

বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়াতে সিভিলের চাকরি আর বেতন ভালো। স্কলারশিপও অনেক। কানাডাতে মাইনিং আর এনভাইরোনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর অনেক ডিমান্ড। স্কলারশিপও বেশি। এই ২ টা বিষয়ই কানাডা তে সিভিল ফ্যাকাল্টির অধীনে পড়ানো হয়। সাথে সিভিলের নিজস্ব ডিমান্ড তো আছেই। সিভিল নিয়ে পড়লে তাই ৩ টা বিষয়ের যে কোনটাতেই স্কলারশিপ পাবার সুযোগ থাকবে।চাকরিরও সুযোগ থাকবে।

আমেরিকাতে ইলেকট্রিক্যালের পর সিভিলের জব সবচেয়ে বেশি, স্যালারিও ভালো। অনেক স্কলারশিপেরও তাই সুযোগ আছে আমেরিকাতে সিভিল নিয়ে।
আর জার্মানিতে স্কলারশিপ সবচেয়ে বেশি মেকানিক্যাল, বায়োমেডিক্যাল আর এনভায়রনটাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের। এর মধ্যে এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং টা সিভিলের ব্রাঞ্চ। তাই জার্মানিতেও সিভিলের স্কলারশিপের সুযোগ থাকবে। জার্মানি জবের জন্যও ভালো।

এবার আসি প্রতিযোগিতার কথায়। পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ইঞ্জিনিয়ার সাপ্লাই দেয় ভারত, চীন আর রাশিয়া। এর মধ্যে ভারত সবচেয়ে বেশি সাপ্লাই দেয় আই টি আর কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার। তার পর ইলেক্ট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল এরপর সিভিল ইঞ্জিনিয়ার (কোরা ডাইজেস্ট থেকে পাওয়া) একই অবস্থা চীন আর রাশিয়াতেও। তাই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে প্রতিযোগিতাও আই টি, কম্পিউটার, ইলেক্ট্রিক্যাল, মেকানিক্যাল থেকে কম।
সবশেষে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং হল একটা ব্যাসিক সাবজেক্ট। এর শাখা সাবজেক্ট হল জিওটেকনিক্যাল, এনভায়রনমেন্টাল, ট্রান্সপোর্টেশন, স্ট্রাকচারাল, ওয়াটার রিসোর্স।

দেশের বাইরে, যেমন: কানাডা, অস্ট্রেলিয়াতে মাইনিং, পেট্রোলিয়াম,পাইপলাইন ইঞ্জিনিয়ারিংও সিভিলের অংশ। এমনকি আরবান প্ল্যানিং, কন্সট্রাকশন ম্যানেজমেন্ট, আর্কিটেকচার, সারভেয়িং, ম্যাটেরিয়ালস ইঞ্জিনিয়ারিং এই বিষয়গুলোতেও সিভিল থেকে যাওয়া যায়। তাই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং খুব বিস্তৃত।
আইপিই, নেভাল ইঞ্জিনিয়ারিং, স্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এগুলো মেকানিক্যালের শাখা হলেও এগুলোর প্রতিটিই স্বত্নন্ত্র শাখা। বরং জব ফিল্ডে এরা মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার দের প্রতিদ্বন্দ্বী। যেমন সি এস ই ইঞ্জিনিয়াররা জবফিল্ডে ইইই ইঞ্জিনিয়ারদের প্রতিদ্বন্দী। কিন্তু সিভিলের কোন ব্রাঞ্চের ইঞ্জিনিয়াররাই জবফিল্ডে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠতে পারে নি। পৃথিবীর কোন দেশেই না।এটাই সিভিলের বিশেষত্ব।

“We Construct, We Rule “

Leave a Comment

error: Content is protected !!