International Islamic University Chittagong

ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) বাংলাদেশের শীর্ষ পর্যায়ের অনুমোদিত বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৯২ সালের বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুসারে প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করে এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কাছ থেকে প্রয়োজনীয় ছাড়পত্র গ্রহণের পরে এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের (জিওবি) অনুমতি প্রাপ্তির পরে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) ১১ ই ফেব্রুয়ারী, ১৯৯৫ সালে কাজ শুরু করে।

এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ধারণার কৃতিত্ব আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম ট্রাস্টকে (আইআইইউসিটি) কে দেওয়া হয়। আইআইইউসি নিজস্ব নিজস্ব স্ট্যাচু, অধ্যাদেশ এবং প্রবিধান বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ১৯৯২, ১৯৯৮ এবং সংশোধিত আইন, ২০১০ অনুসারে আইআইইউসি-র একাধিক কর্মকা- একাডেমিক, প্রশাসনিক, আর্থিক, শিক্ষার্থী কল্যাণ, শৃঙ্খলা ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে গঠন করেছে। বেশিরভাগ বিধিবদ্ধ সংস্থার অধীনে গঠিত তখন থেকে আইনটির বিধানগুলি কার্যকর হয়। সিএসই, ইইই এবং সিসিইর স্নাতক ডিগ্রিগুলি বিএইটিইই (BAETE) দ্বারা অনুমোদিত। আইআইইউসি পূর্ববর্তী পরীক্ষার ফলাফল এবং আর্থিক অবস্থার উপর নির্ভর করে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন হারে ছাড়, উদার আর্থিক সহায়তা এবং বৃত্তি প্রদান করে। আইআইইউসি বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল, যেখান থেকে মর্যাদাপূর্ণ পদে পুরষ্কার অর্জন করে।

আইআইইউসি শিক্ষা, নৈতিকতা এবং জ্ঞানের ইসলামীকরণ সম্পর্কিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সাফল্যের সাথে পাঁচটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করে। এটি নিয়মিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিজ্ঞান ও আইসিটি মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) সহযোগিতায় ‘জাতীয় কম্পিউটার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা’ (এনসিপিসি-২০০৪) আয়োজন করেছিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মিশন হল নৈতিক সংবেদনশীলতা, বুদ্ধিমত্তা এবং স্বতন্ত্রভাবে চিন্তা করার ক্ষমতা হিসাবে আমাদের ছাত্রদের দক্ষতার বিকাশ সাধন করে সমাজের আর্থ-সামাজিক উন্নতি ও নৈতিক উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনশক্তিকে সঠিকভাবে অনুসরণের মাধ্যমে উৎপাদন করা, যাতে তারা অধ্যয়নের ক্ষেত্রগুলি ছাড়িয়ে সর্বস্তরের ন্যায়বিচার বজায় রাখতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিশন হল এই বিশ্ববিদ্যালয়কে শ্রেষ্ঠত্বের কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা , শিক্ষার জন্য জাতীয়ভাবে প্রতিযোগিতামূলক এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সুযোগগুলি প্রদানের জন্যে বিভিন্ন স্কলারশিপের ক্ষেত্রে যেমন শরিয়াহ ও ইসলামিক স্টাডিজ, বিজনেস স্টাডিজ, সামাজিক বিজ্ঞান, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল, চারুকলা, মানবিক, আইন এবং এমন অন্যান্য অনুষদ যা ভবিষ্যতে প্রবর্তিত হবে। জাতি, অঞ্চল এবং ধর্ম নির্বিশেষে সারা বিশ্ব জুড়ে ভর্তি প্রার্থীদের জন্য এটির দরজা উন্মুক্ত। এই বিশ্ববিদ্যালয় দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় জ্ঞান ও স্রষ্টার অন্যতম সেরা আসন হওয়ার স্বপ্নকে লালিত করছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশ্য:

যোগ্য যুবকদের একটি নতুন প্রজন্ম তৈরি করা যারা একাডেমিক শ্রেষ্ঠত্ব, পেশাদার দক্ষতায় সজ্জিত এবং নৈতিক উচ্চতায় সজ্জিত থাকবে। –শিক্ষার বিভিন্ন শাখায় জ্ঞানের অব্যাহত আধুনিকীকরণ এবং একাডেমিক পাঠ্যক্রমের নীতি অনুসরণ করা যাতে এর ছাত্ররা তাদের পেশা এবং দৈনন্দিন জীবনে কার্যকর নির্দেশিকা নীতি হিসাবে ধর্মীয় মূল্যবোধের আসল চেতনাটি ধারণ করতে পারে।

Policy – বিশ্ববিদ্যালয়টি উচ্চ-মানের নির্দেশনা এবং শেখার অভিজ্ঞতার মাধ্যমে তার স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর প্রোগ্রামে শিক্ষার্থীদের আজীবন সাফল্যের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আইআইইউসির ইন্টিগ্রেটেড শিক্ষানীতি রয়েছে, যেখানে একজন শিক্ষার্থী তার চারপাশ এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক জ্ঞানের ভিত্তি সম্পর্কে সচেতনতার মাধ্যমে সর্বজনীন শিক্ষা অর্জন করতে পারে। অন্যদিকে আইআইইউসি বৈজ্ঞানিক, প্রযুক্তিগত এবং পেশাগত জ্ঞানের প্রসারকে জোর দেয়। এক্ষেত্রে আইআইইউসিতে সকল অনুষদের শিক্ষার্থীদের জন্য কিছু কোর্স রয়েছে, যেগুলি বিভাগসমূহের মূল পাঠ্যক্রমের অংশ নয়, তবে তাদের নামকরণ করা হয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজনীয় পাঠ্যক্রম (ইউআরসি)।

Co-Curricular and Extra-Curricular activities: আইআইইউসি ছাত্রজীবন এবং সাফল্যের প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার এক অবিচ্ছেদ্য উপাদান হিসাবে কো-কারিকুলার এবং অতিরিক্ত পাঠ্যক্রমিক ক্রিয়াকলাপের বিস্তৃত শারিতে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণকে সমর্থন করে। এই প্রোগ্রামগুলির মধ্যে প্রধানত নেতৃত্বের প্রশিক্ষণ, সাংস্কৃতিক, পরিবেশগত, বিনোদনমূলক এবং সামাজিক ক্রিয়াকলাপ, বিতর্ক ও জনসাধারণের বক্তৃতা কর্মসূচী, বৌদ্ধিক আলোচনা, গেমস এবং স্পোর্টস এবং দেশ ও বিদেশে অধ্যয়নগত কর্মকাণ্ডের পরিপূরক হিসেবে ভ্রমণ। এই কর্মসূচির মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন অঞ্চল, ধর্ম, বিশ্বাস এবং সংস্কৃতির মধ্যে পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে সঠিকভাবে নিজেকে প্রকাশ করার, ব্যক্তিত্ব বজায় রাখার এবং অন্যান্য ধর্মের লোকদের সম্মান করতে শিখার ক্ষমতা অর্জন করে। সমস্ত কো এবং অতিরিক্ত পাঠ্যক্রমিক কার্যক্রম শিক্ষার্থী বিষয়ক বিভাগের (এসটিএডি) নিবিড় তত্ত্বাবধান এবং তদারকির অধীনের বিভাগ, কম্পিউটার ক্লাব এবং বিজনেস ক্লাব ইত্যাদি নামে ক্লাব দ্বারা পরিচালিত হয়।

International Islamic University Chittagong – ( IIUC ) তে পড়তে কত খরচ হয়?

1. BBA——–4,54, 000 Tk

2. English—-3,08, 800 Tk

3. LLB——-395,316 Tk

4.Economics—-3,13,000 Tk

5. CSE——5,22,616 Tk

6. EEE—-4,91,000 Tk

7. ECE —4,91,000 Tk

8 .CCE —–4,91,000 Tk

9. CIVIL— 5,91, 000 Tk

10.Pharmacy—-5,42,216 Tk

11. QSIS—74,516 Tk

12.SHIS— 74,516 Tk

13. DIS—74,516 tK

Leave a Comment

error: Content is protected !!